জীবনে বড় হওয়ার পথে চাকরী যখন বাঁধা!

স্বপ্ন পূরণের পথে বাধা তো থাকবে! আর সেই স্বপ্ন যদি হায় স্রোতের বিপরীতে নিজেকে দাঁড় করানোর মত ব্যাপার তবে আপনাকে নিশ্চয় কৌশলী হতে হবে। সাহসী পদক্ষেপ গ্রহণের সাথে আত্মবিশ্বাসীও হতে হবে। হতে হবে কঠোর পরিশ্রমী। সেই সাথে লোকে কি বলে তার দিকে মোটেও কান না দিয়ে এগিয়ে যেতে হবে দৃপ্ত পদক্ষেপে।

আমাদের চারপাশে নেতিবাচক মানুষের সংখ্যা প্রচুর। তারা নতুন কিছুতে সাহস দেওয়া তো দূরের কথা সবসময় ভয় দেখায়। কোন একটা ছোট উদ্যোগের যে বিশাল আকৃত্তি আসতে পারে তা চিন্তা করে পরামর্শ তো দূরের কথা এমন ভয় মনের মধ্যে ঢুকিয়ে দেয় যে উদ্যোগের বারোটা বেজে যায়। অবশেষে দেখা যায় আপনার আইডিয়া আইসিউতে!

এখানেই শেষ নয় নিজেদের স্বপ্ন নিয়ে আমরা নিজেরাই স্পষ্ট নই। ছোট বেলার স্বপ্নগুলো বড় হতে হতে কখন বাস্তবতার হাত গলে উদ্যোক্তা হওয়ার বিপরীতে চাকরে পরিণত করেছে সেটাও ভুলে গেছি। এমন অনেকে আছেন যারা নয়টা পাচটার অফিসকেই জীবনের নিয়তি বলে মেনে নিয়েছেন।

বাসে ঝুলে ঝুলে অফিসে হাজিরা দেওয়া আর মাসে শেষে মাইনে নিয়ে সন্তুষ্ট থাকাটাই জীবন বলে অনেকে গর্ব করেন। সকাল বেলা যে স্যার ডাক শুনে দিন শুরু করেছেন তারও যে বসকে স্যার বলে বলে মুখে ফেনা তুলতে হয় সেটাও জীবনের নিয়তি বলে মেনে নিয়েছেন। সম্ভবনাগুলোকে গলাটিপে হত্যা করে মাস শেষে বেতনের টাকা হাতে নিয়ে শুকনো হাসি হাসার নামই জীবন নয় এটা ভুলে গিয়েছেন।

কোম্পানী আপনাকে কাজের জন্য বেতন দেয় না! মানসিক অশান্তি ভোগ করার জন্য বেতন দেয়। বেশীরভাগ কোম্পানীর সেলস এন্ড মার্কেটিংয়ে যারা জব করেন তারা একজায়গাতে স্থায়ী হতে পারেন না। এ সেক্টরে কর্মীদের যে বেতন কোম্পানী বহন করে এর চেয়ে কয়েকগুণ বেশী বেতনের চাপ কোম্পানী তাদের দিতে থাকে প্রতি মুহুর্তে! দিনশেষে চোখ বুজলেও ঘুমটা ভালো হয় না টার্গেটের চাপে!

নানা সমস্যায় স্বপ্নকে বিকিয়ে দেওয়া মানুষগুলোর মুখে হাসি ঠিক থাকে তবে শুকনো সে হাসি। মোড়কে মোড়া কর্পোরেট হাসি। এত চাপের মধ্য দিয়েও কিছু ব্যাতিক্রমী চরিত্র এ পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয়ে যায়। হুট করে দেখা যায় পূর্ব অভিজ্ঞতাকে কাজে লাগিয়ে ঝুঁকি নিয়ে বসে ঘুরে দাঁড়াবার। চাকরী ছেড়ে দিয়ে নিজের মত করে পথচলার জন্য বেছে নেয়া পথটি বয়ে আনে জীবনের সবচেয়ে মূল্যবান সম্পদ।

ফিরে পাওয়া স্বাধীনতা। নিজের জন্য কাজ করা আর অন্যের জন্য কাজ করার মধ্যে পার্থক্য একটাই স্বাধীনতা। যদিও স্বাধীনতা অর্জনের চেয়ে রক্ষা করা আরও বেশী কঠিন। তবুও সম্ভবনাকে কাজে লাগিয়ে নিতে সজাগ দৃষ্টি রাখলে সুযোগ এসে হাতে ধরা দিবেই। ঘুরে দাড়ানোর জন্য একটা ছোট সিদ্ধান্ত একটা জীবন নয় একটা সমাজ বদলে দিতে পারে। শুরুটা ছোট থেকেই হয়। এগিয়ে যাওয়ার পথে হোচট খেতেই হয়। তবুও এগিয়ে যেতে হয় স্বপ্নের পথে।

শেয়ার করুন:

Facebook
Twitter
Pinterest
LinkedIn

সম্পর্কিত পোস্ট

দেড়শ নারীকে স্বাবলম্বী করছেন ফেরদৌসি পারভীন!

পার্বত্য চট্টগ্রামের পাহাড়ি নারীদের একটা অংশ উৎপাদনের সঙ্গে জড়িত। কিন্তু পুঁজির অভাবে অনেকেই উদ্যোক্তা হয়ে উঠতে পারছে না। থামি. পিননসহ বিভিন্ন ঐতিহ্যবাহী পোশাক প্রস্তুত করতে

উদ্যোক্তাদের জন্য মানসিক চাপ কমানোর কিছু পন্থা

আমরা আজকে উদ্যোক্তাদের জন্য আলোচনা করবো মানসিক চাপ কমানোর পন্থা নিয়ে কারন উদ্যোক্তারা অনেকেই মানসিক চাপ নিয়ে তার উদ্যোগ কে সফলার দিকে নিয়ে যেতে পারে

বাড়ির ছাদে ছাগল পালন করে স্বাবলম্বী রায়হান!

‘পরিবারে কোনো আর্থিক অনটন ছিল না। পড়েছি পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ে। তাই আমার মতো ছেলে কেন ছাগল পালন করবে, এটাই ছিল মানুষের আপত্তির কারণ। কিন্তু মানুষের সেসব